সর্বশেষ
Home / অর্থ-বাণিজ্য / ২০ ওষুধ কোম্পানির উৎপাদন বন্ধের বিষয়ে রায় ৯ ফেব্রুয়ারি

২০ ওষুধ কোম্পানির উৎপাদন বন্ধের বিষয়ে রায় ৯ ফেব্রুয়ারি

জীবন রক্ষায় মানসম্পন্ন ওষুধ উৎপাদনে চূড়ান্তভাবে ব্যর্থ হওয়া ২০টি কোম্পানির উৎপাদন বন্ধে জারি করা রুলের উপর শুনানি শেষ হয়েছে।

আগামী ৯ ফেব্রুয়ারি রায় দেবেন হাইকোর্ট। এ বিষয়ে জারি করা রুল শুনানি শেষে বিচারপতি সৈয়দ মোহাম্মদ দস্তগীর হোসেন ও বিচারপতি আতাউর রহমান খানের হাইকোর্ট বেঞ্চ রায়ের এই দিন নির্ধারণ করেন।

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট মনজিল মোরসেদ। এর আগে ২০১৬ সালের ৭ জুন ২০টি কোম্পানির ওষুধ উৎপাদন এক সপ্তাহের মধ্যে বন্ধের নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট।

একইসঙ্গে অপর ১৪টি প্রতিষ্ঠানের এন্টিবায়োটিক (ননপেনিসিলিন, পেনিসিলিন ও সেফালোস্পোরিন) ওষুধ উৎপাদনও বন্ধের নির্দেশ দেয়া হয়।

এ নির্দেশনা বাস্তবায়নের পর দুই সপ্তাহের মধ্যে স্বাস্থ্য সচিব, স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালকসহ চারজনকে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের উৎপাদন বন্ধে পুলিশ মহাপরির্শক (আইজিপি) ও র্যাবের মহাপরিচালককে সর্বাত্মক সহযোগিতারও নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

ওইদিনই মানসম্মত ওষুধ উৎপাদনে ব্যর্থ ২০টি কোম্পানির লাইসেন্স বাতিল ও ১৪টি কোম্পানির এন্টিবায়েটিক লাইসেন্স বাতিলে সরকারের নিষ্ক্রিয়তাকে কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না এবং তাদের লাইসেন্স কেন বাতিল করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন হাইকোর্ট।

চার সপ্তাহের মধ্যে স্বাস্থ্য সচিব, স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক, পুলিশের মহাপরিদর্শক, র্যাবের মহাপরিচালক ও পরিচালক, জাতীয় ভোক্তা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ও ওষুধ প্রশাসনের পরিচালক এবং ওষুধ শিল্প সমিতির সাধারণ সম্পাদককে চার সপ্তাহের মধ্যে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

ওই রুলের ওপরই মঙ্গলবার শুনানি শেষে আদালত ৯ ফেব্রুয়ারি রায়ের দিন নির্ধারণ করেন।

এসব প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স বাতিলের নির্দেশনা চেয়ে মানবাধিকার সংগঠন হিউম্যান রাইটস এন্ড পিস ফর বাংলাদেশের পক্ষে ২০১৬ সালের ৫ জুন হাইকোর্টে একটি রিট দায়ের করা হয়।

মানসম্পন্ন ওষুধ উৎপাদনে চূড়ান্তভাবে ব্যর্থ ২০ কোম্পানি হলো- এক্সিম ফার্মাসিউটিক্যাল, এভার্ট ফার্মা, বিকল্প ফার্মাসিউটিক্যাল, ডলফিন ফার্মাসিউটিক্যাল, ড্রাগল্যান্ড, গ্লোব ল্যাবরেটরিজ, জলপা ল্যাবরেটরিজ, কাফমা ফার্মাসিউটিক্যাল, মেডিকো ফার্মাসিউটিক্যাল, ন্যাশনাল ড্রাগ, নর্থ বেঙ্গল ফার্মাসিউটিক্যাল, রিমো কেমিক্যাল, রিদ ফার্মাসিউটিক্যাল, স্কাইল্যাব ফার্মাসিউটিক্যাল, স্পার্ক ফার্মাসিউটিক্যাল, স্টার ফার্মাসিউটিক্যাল, সুনিপুণ ফার্মাসিউটিক্যাল, টুডে ফার্মাসিউটিক্যাল, ট্রপিক্যাল ফার্মাসিউটিক্যাল এবং ইউনিভার্সেল ফার্মাসিউটিক্যাল লিমিটেড।

এছাড়া মানসম্মমত এন্টিবায়োটিক ওষুধ উৎপাদনের ব্যর্থ ১৪টি কোম্পানি হচ্ছে আদ-দ্বীন ফার্মাসিউটিক্যাল, আলকাদ ল্যাবরেটরিজ, বেলসেন ফার্মাসিউটিক্যাল, বেঙ্গল ড্রাগস, ব্রিস্টল ফার্মা, ক্রিস্ট্যাল ফার্মাসিউটিক্যাল, ইন্দো-বাংলা ফার্মাসিউটিক্যাল, মিল্লাত ফার্মাসিউটিক্যাল, এমএসটি ফার্মা, অরবিট ফার্মাসিউটিক্যাল, ফার্মিক ল্যাবরেটরিজ, ফনিক্স কেমিক্যাল, রাসা ফার্মাসিউটিক্যাল এবং সেভ ফার্মাসিউটিক্যাল লিমিটেড।

Test

আরো দেখুন

বিএনপির একক মনোনয়নপ্রত্যাশী,বিভেদ আ’লীগে,একাধিক মনোনয়ন আশাবাদী।

বিএনপির একক মনোনয়নপ্রত্যাশী,বিভেদ আ’লীগে,একাধিক মনোনয়ন আশাবাদী। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে বরগুনা-০১ (বরগুনা-আমতলী ও …

Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com